Dec ০৮

ইঞ্জিনিয়ারিং ছাত্রের জন্য প্রয়োজনীয় সূত্র ! (Engineering Law)

ওহমের সূত্র (Ohm’s Law)

1826 সালে জার্মান বিজ্ঞানী ড: জর্জ সাইমন ওহম কারেন্ট, ভোল্টেজ এবং রেজিস্ট্যান্সের মধ্যে সম্পর্ক নির্ণয় করেন, এ সম্পর্কই ওহমের সূত্র নামে পরিচিত।

কোন পরিবাহীর মধ্য দিয়ে সুষম উষ্ণতায় প্রবাহিত কারেন্ট ঐ পরিবাহীর দুপ্রান্তের ভোল্টেজের  সমানুপাতিক।

অথবা

কোন পরিবাহির ভিতর দিয়ে স্থির তাপমাত্রায় প্রবাহিত কারেন্ট ঐ পরিবাহির দুপ্রান্তের বিভব পার্থক্যের  সমানপাতিক এবং রেজিস্ট্যান্সের বাস্তানুপাতিক।

ওহমের সূত্র মতে, কোন পরিবাহীর দুই প্রান্তের বিভব পার্থক্য V এবং প্রবাহিত কারেন্ট I হলে,

V α I

বা, V = IR         এখানে, R = পরিবাহীর রেজিস্ট্যান্স (সমানুপাতিক ধ্রুবক)

ওহমের সূত্রের সীমাবদ্ধতা:

ওহমের সূত্রকে যদিও ইলেকট্রিসিটির গুরু বলে মানা হয়, এর কিছু সীমাবদ্ধতা আছে

১. ওহমের সূত্র DC এর ক্ষেত্রে প্রযোজ্য, AC এর ক্ষেত্রে নয়।
২. তাপমাত্রা পরিবর্তন হলে ওহমের সূত্র প্রযোজ্য নয়।
৩. তাপমাত্রা স্থির থাকলেও সিলিকন কার্বাইডের ক্ষেত্রে ওহমের সূত্র প্রযোজ্য নয়।
৪. জটিল সার্কিট সমূহ ওহমের সূত্রের সাহায্যে সমাধান করা যায় না।Engineering law

ফ্যারাডের ইলেকট্রোলাইসিস সূত্র (Farads Law of Electrolysis)

বিখ্যাত বিজ্ঞানী মাইকেল ফ্যারাডে ইলেকট্রোলাইসিসের দুটি সূত্র উদ্ভাবন করেন।

প্রথম সূত্র:

ইলেকট্রোলাইসিস প্রক্রিয়ায় ইলেকট্রোডের উপর জমা হওয়া পদার্থের পরিমাণ, দ্রবণ বা ইলেকট্রোলাইটের ভিতর দিয়ে প্রবাহিত বিদ্যুতের পরিমাণের সমানুপাতিক।

Read the rest of this entry »

Share

Nov ২৯

ইলেকট্রিক্যাল ছাত্রদের জন্য কিছু সাধারণ প্রশ্ন ? ও উত্তর!-৩

বিদ্যুৎ কেন্দ্রে উৎপাদিত পাওয়ারকে ট্রান্সমিশন লাইন বা গ্রীড লাইনের মাধ্যমে এক স্থান থেকে অন্য স্থান পরিবহন করতে হয় ।পাওয়ার ট্রান্সমিশনের জন্য লক্ষ্য রাখা অপরিহা্য্ যাতে ট্রান্সমিশন জনিত লস কম হয় , ভোল্টেজ রেগুলেশন ভাল হয় এমনকিট্রান্সমিশন ব্যয় কম হয় ।

১। একটি আধুনিক এ, সি পাওয়ার সিস্টেমের উপাদানগুলির নাম লিখ

এসি ব্যবস্থায় ট্রান্সমিশন তিন ফেজে তিন তার এবং ডিস্ট্রিবিউশনের ক্ষেএে তিন ফেজ চার তার ব্যবস্থা সাধরণত ব্যবহৃত হয় । একটি আধুনিক এসি পাওয়ার সিস্টেমের উপাদান সমুহ সাধারণতঃ নিম্নরূপ হয়ে থাকেঃ-
ক] উৎপাদন কেন্দ্র ।
খ] স্টেপ আপ কেন্দ্র ।
গ] ট্রান্সমিশন লাইন।
ঘ] সুইচিং ষ্টেশন।
ঙ] স্টেপ ডাউন উপকেন্দ্র ।
চ] প্রাইমারী ডিষ্ট্রিবিউশন লাইন বা নেটওয়াক্।
ছ] সার্ভিস ট্রান্সফরমার বা বিতরণ ট্রান্সফরমার।
জ] সেকেন্ডারি ডিষ্ট্রিবিউশন লাইন।

Lightbulb-Custom-510x338Professional-Electrical07

ফিডার কাকে বলে? ফিডার লাইনের বৈশিষ্ট্য কি কি?

বিভিন্ন জনবহুল এলাকা, শিল্পাঞ্চল বা আবাসিক এলাকায় বিদ্যুৎ বিতরণের জন্য উচ্চ ভোল্টেজ উপকেন্দ্র বা গ্রিড উপকেন্দ্র থেকে বিভিন্ন লোড সেন্টারে বিদ্যুৎ সরবরাহের নিমিত্তে যে বৈদ্যুতিক লাইন নির্মাণ করা হয় তাকে ফিডার বলে । অর্থাৎ উচ্চ ভোল্টেজ বিদ্যুৎ উপকেন্দ্র হতে নিন্মচাপের বিদ্যুৎ উপকেন্দ্রের মধ্যে সংযুক্ত লাইনের নামই ফিডার ।
ফিডার লাইনের বৈশিষ্ট্য সমুহ নিন্মরুপঃ
১। ফিডারে কোন ট্যাপিং থাকেনা ।
২। কারেন্ট ডেনসিটি সর্বত্র সমান থাকে ।
৩। সর্বত্র কারেন্ট ক্যাপাসিটরের উপর ভিত্তি করে ডিজাইন করা হয় ।
৪। ভোল্টেজ ড্রপ তত গুরত্ত দেওয়া হয় না । Read the rest of this entry »

Share

Nov ১২

ব্লক বা বন্ধ হওয়া সাইট দেখুন বিকল্প উপায়ে

ব্লক করা ওয়েবসাইট দেখার জন্য যে ওয়েবসাইট ব্যবহার করা হয় তাকে প্রক্সি সাইট বলা হয়। এই প্রক্সি সাইট দিয়ে ব্লক করা বা নিষিদ্ধ সব সাইটে সহজেই প্রবেশ করা যায়। ইন্টারনেটে এরকম শত শত প্রক্সি সাইট রয়েছে, যা দিয়ে ডোমেইনের মাধ্যমে ব্লক করা সাইট দেখা যায় সহজেই। এই প্রক্সি সাইটগুলোর মধ্যে http://www.freeproxy.net হলো পৃথিবীর প্রথম ১০টি র্যাঙ্কড প্রক্সি ওয়েবসাইটের মধ্যে একটি। ইন্টারনেট ব্রাউজারে http://www.freeproxy.net লিখে এন্টার করার পর ঠিক মাঝামাঝি স্থানে একটি সার্চ করার জায়গা দেখা যাবে, সেখানে ব্লগ করা ওয়েবসাইটটির ঠিকানা লিখে সার্চ দিলেই সাইটটি দেখা যাবে। এ রকম আরও কিছু সাইটের ঠিকানা হলো :

http://www.kproxy.com
http://www.zendproxy.com
http://www.pagewash.com
http://www.hidemyass.com
http://www.proxybrowsing.com
http://www.proxsafe.net
http://199.167.132.128/index.php
http://www.boomproxy.com
http://www.zfreez.com
http://www.proxy-server.at

Block site
http://www.newipnow.com
http://www.hidemehere.com
http://www.zend2.com
http://www.youtubeproxy.org

Read the rest of this entry »

Share
প্রযুক্তিময়-জীবন পাতা ৪ of ১১« শুরু First......১০...Last শেষ »
Visit Us On FacebookVisit Us On TwitterVisit Us On YoutubeVisit Us On Google Plus